সবার নজর এখন বিজয়নগর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন!

0
99

 

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামীলীগ নাকি স্বতন্ত্র প্রার্থী জয় পাবে। নির্বাচন কেমন হবে। এ আলোচনা এখন সর্বত্র। জেলায় সর্বশেষ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন এটি। সে কারণে সবার নজর এখন সেদিকেই। তাছাড়া আরো অনেক কারণেই আলোচিত হয়ে উঠেছে সীমান্তবর্তী এই উপজেলার নির্বাচন। ৬৩ কেন্দ্রের সবকটিতে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণ করা হবে এখানে।
ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর সংসদীয় আসন এলাকার একটি উপজেলা এটি। ১৮ জুনের এ নির্বাচনকে সামনে রেখে রোজা এবং ঈদ পরবর্তীতে প্রচার-প্রচারণা জমে উঠেছে সেখানে। গত বুধবার জেলার আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভাতেও আলোচনা হয়েছে এই নির্বাচন নিয়ে। দু-মাস আগে সদরের নির্বাচনে নৌকার শোচনীয় পরাজয় হয়। ওই নির্বাচনে ধনাঢ্য এক স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষ নেয়ার অভিযোগ উঠে প্রশাসনের বিরুদ্ধে। ভোটের আগের রাত থেকেই আ’লীগ নেতাকর্মী ও সমর্থকদের ওপর চড়াও হয় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদের নেতৃত্বে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। আ’লীগকে মাঠ ছাড়া করে সুষ্ঠুু নির্বাচনের পথ করা হয়! এই নির্বাচন নিয়ে আলোচনা আর আওয়ামীলীগের ক্ষোভ-বিক্ষোভ মিটে যাওয়ার আগেই বিজয়নগরে স্বতন্ত্র প্রতিদ্ব›দ্বীর ঘোষণা দিয়ে মাঠে নামেন এক প্রবাসী ব্যবসায়ী লুৎফুর রহমানের (মুকাই আলী) স্ত্রী নাছিমা মুকাই আলী। ঠিক সদরের মতোই বিজয়নগরে এই স্বতন্ত্র প্রার্থীর গ্যাড়াকলে পড়েছে আওয়ামীলীগ। নির্বাচনের প্রচার-প্রচারণার শুরুতে নাছিমার স্বামী মুকাই আলী ঘোষণা দেন প্রশাসনের সঙ্গে কথাবার্তা বলেই নির্বাচন করতে এসেছেন তিনি। কারো কোন ভয় নেই। তফসিল ঘোষণার আরো আগে থেকেই প্রতিদিন ৮/১০ টি গাড়ি নিয়ে প্রচার-প্রচারণা চালাতে থাকেন নাছিমার সমর্থকরা। এরশাদ সরকারের সাবেক উপমন্ত্রী ও জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট হুমায়ুন কবির। হুমায়ুন কবির নাছিমার পক্ষে প্রচার-প্রচারণায় নামেন সদরের নির্বাচনের পর থেকে। কেন্দ্রীয় জাতীয় পার্টির নেতা শাহ জামাল রানা ও তার অনুসারী জেলা ও উপজেলার নেতাকর্মীরাও নাছিমার জন্যে কাজ করছেন। বিএনপি’র স্থানীয় নেতাকর্মীরাও নিরবে সমর্থন করছেন নাছিমাকে। আর সে কারণেই প্রতিদ্ব›িদ্বতার হিসেবে নাছিমার ‘ঘোড়া’ এগিয়ে আছে বলে ধরা হচ্ছে । অন্যদিকে জনবিচ্ছিন্নতা এবং গত ৫ বছর চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালনকালে উপজেলা পরিষদে সময় না দেয়ার অভিযোগ তানভীরের বিরুদ্ধে দলের অধিকাংশ নেতাকর্মীরা কাজ শুরু করেছে। আর সেকারণে তার বিপরীতে এক প্রবাসীর স্ত্রী ভোটের মাঠে জায়গা করে নেন সহজেই। তবে আ’লীগের নেতারা বলছেন টাকা দিয়ে মাঠ দখল করেছেন নাছিমা মুকাই আলী।
উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি জহিরুল ইসলাম ভূইয়া বলেন, অবস্থার পরিবর্তন হচ্ছে। ওই মহিলা (স্বতন্ত্র প্রার্থী) টাকা পয়সা দিয়ে অবস্থা করেছেন। এটা থাকবেনা। আমরা ওভারকাম করতে পারবো।
আওয়ামীলীগ প্রার্থী এডভোকেট তানভীর ভূইয়া বলেন, রোজা ও ঈদের কারণে দলের নেতাকর্মীরা মাঠে সোচ্চার ছিলোনা। আজকে পর্যন্ত ৬০-৬৫ ভাগ লোক কাজে নেমেছে। ফলে এখন অবস্থা অনেক ভালো। এদিকে নাছিমা মুকাই আলী তার প্রচার-প্রচারণায় শুরু থেকে বাঁধা প্রাপ্ত হচ্ছেন বলে অভিযোগ করেন। তার গাড়িবহরে হামলা চালিয়ে পোড়ানো হয় বলে জানান।
এই উপজেলা নির্বাচনে ভোট হবে ইভিএম পদ্ধতিতে। ৬৩ কেন্দ্রের সবকটিতেই এই পদ্ধতিতে ভোট হবে। তারপরও নির্বাচন সুষ্ঠু হবে কিনা তা নিয়ে সন্দেহ আছে ভোটারদের। নানা আলোচনা ইভিএম’র ভোট নিয়ে। নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আরো ২ জন প্রতিদ্ব›দ্বী রয়েছেন। তারা হচ্ছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী মোসাহেদ হোসেন (দোয়াত কলম) ও সৈয়দ মাঈন উদ্দিন (আনারস)। পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন ৩ জন। তারা হচ্ছেন মাহমুদুর রহমান মান্না (চশমা), মৃণাল চৌধুরী (মাইক) ও মো. মোখলেছুর রহমান লিটন (টিওবওয়েল)। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্ব›িদ্বতা করছেন ফয়জুননাহার টুনি (হাঁস) ও সাবিত্রী রানী (কলস)। মোট ভোটার ১লাখ ৭২ হাজার।

কমেন্ট এর উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে